//
আইয়াত ৪৭-৫৭

৪৭. আর সেই দিনে আমি পাহাড়গুলোকে (ধুলোমেঘের মত) সঞ্চালন করবো এবং তুমি পৃথিবীকে দেখবে সমতল সমভূমির মত, আর আমরা তাদের সবাইকে একত্রে জড়ো করব যাতে করে একজনও বাদ না পড়ে।

৪৮. তোমার প্রভুর সামনে তাদেরকে (লাইনে) সারিবদ্ধভাবে হাজির করা হবে, (আর আল্লাহ তখন বলবেন):     “তোমাদেরকে প্রথমবার যেভাবে সৃষ্টি করেছিলাম, সেভাবেই এখন তোমরা আমার নিকট এসেছ। যদিও তোমরা মনে করতে যে, আমি (আমার সাথে) তোমাদের জন্য সাক্ষাতের কোন সময় নির্ধারণ করি নি।”

৪৯. এবং (আল্লাহর একত্বে বিশ্বাসীদের ডান হাতে এবং আল্লাহর একত্বে অবিশ্বাসীদের বাম হাতে তাদের স্বীয় কৃতকর্মের লিখিত বিবরণীর) বই দেয়া হবে, আর ওর মধ্যে যা (লেখা) আছে সে জন্য তুমি দেখবে মুজ্রিমূনরা (সন্ত্রাসী, অপরাধী, মূর্তিপূজক, পাপী) ভয়ে আতংকিত হয়ে আছে। তারা বলবেঃ “ধিক আমাদের প্রতি! এটা কী ধরণের বই, না ছোট না বড় কোন জিনিসই বাদ যায় নি, বরং সবকিছুই নাম্বারসহ নথিভুক্ত করেছে!” আর তারা যা কিছু করেছে তার সব তাদের সামনেই উপস্থিত পাবে। আর তোমার প্রভু কারও সাথে অন্যায় আচরণ করেন না।

৫০. আর (স্মরণ করো) যখন আমি মালা’ইকাদের বললামঃ “আদামের প্রতি সিজদাহ করো।” তখন ইব্লীস (শয়তান) ছাড়া সকলেই সিজদাহ করলো। সে ছিল জিনদের মধ্যেকার একজন; সে তাঁর প্রভুর আদেশ অমান্য করল। তারা তোমাদের শত্রু হওয়া স্বত্তেও কি তোমরা আমাকে বাদ দিয়ে তাকে (ইব্লীস) ও তার বংশধরদের রক্ষাকর্তা ও সাহায্যকারী হিসেবে গ্রহণ করবে? জ়লিমূন (মূর্তিপুজক এবং অন্যায়কারী)দের বিনিময় কত—না নিকৃষ্ট।

৫১. মহাকাশমণ্ডলী ও পৃথিবীর সৃষ্টিকালে (আল্লাহ) তাদের সাক্ষী রাখেন নি (আর না তাদের কোন সাহায্য নিয়েছেন) আর না তাদের নিজেদের সৃষ্টিকালেও, আর না আমি (আল্লাহ) বিপথগামীদেরকে সাহায্যকারী হিসেবে গ্রহণ করি।

৫২. আর সেদিন তিনি বলবেনঃ “যাদের তোমরা আমার (তথাকথিত) সঙ্গিসাথী ভাবতে তাদের ডাকো।” তখন তারা চিৎকার করে তাদের ডাকবে, কিন্তু তারা কোন জবাব দেবে না, আর আমি তাদের মধ্যে একটি মাউবিক্ব (ব্যবধান) [১] স্থাপন করব।

৫৩. আর মুজ্রিমূনরা (অপরাধী, মূর্তিপূজক, পাপীরা) আগুন দেখতে পাবে এবং বুঝতে পারবে যে তারা এতেই পড়তে যাচ্ছে কিন্তু তারা সেখান থেকে পালানোর কোন পথ খুঁজে পাবে না।

৫৪. আর নিশ্চয় আমি মানবজাতির জন্য এই ক্বুর’আনে সব ধরণের উদাহরণ দিয়েছি। কিন্তু মানুষ বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই বিতর্কপ্রিয়।

৫৫. যখন তাদের কাছে পথনির্দেশ (আল-ক্বুর’আন) আসে, তখন এই প্রতীক্ষাই মানুষকে বিশ্বাস স্থাপন ও তাদের প্রভুর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করতে বিরত রাখে যে, কখন তাদের অবস্থা পূর্ববর্তীদের মত হবে (আল্লাহর আদেশে তাদের ধ্বংস) কিংবা কখন সরাসরি তাদের ওপর শাস্তি নেমে আসবে।

৫৬. আর আমি সুসংবাদদাতা এবং সতর্ককারী ভিন্ন অন্য কোন কারণে বার্তাবাহকদের পাঠাই নি। কিন্তু যারা অবিশ্বাস করে, তারা মিথ্যা যুক্তি দিয়ে বিতর্ক করে, যাতে করে এর সাহায্যে সত্যকে ভুল প্রমাণ করতে পারে। আর তারা আমার আইয়াতসমূহকে (অর্থাৎ প্রমাণাদি, লক্ষণ ও নিদর্শনসমূহ, প্রত্যাদেশ, উপদেশমূলক উদাহরণসমূহ, পঙক্তি ইত্যাদি) এবং যা দিয়ে তাদের সতর্ক করা হয়েছে, সেগুলোকে ঠাট্টা বিদ্রুপের বিষয়রূপে গ্রহণ করে থাকে।

৫৭. তার চেয়ে বেশি অন্যায়কারী আর কে হতে পারে, যাকে তার প্রভুর আইয়াতসমূহ (অর্থাৎ প্রমাণাদি, লক্ষণ ও নিদর্শনসমূহ, ওয়াহী, শিক্ষামূলক উদাহরণসমূহ, পঙক্তি ইত্যাদি) স্মরণ করিয়ে দেয়া হয়, কিন্তু সে তা থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়, আর ভুলে যায় তার দুহাত কী (কার্যকলাপ) সামনে বাড়িয়েছে। নিশ্চয় আমি তাদের অন্তরসমূহের ওপর পর্দা দিয়ে দিয়েছি, পাছে তারা তা (আল-ক্বুর’আন) বুঝে ফেলে, আর তাদের কান, বধিরতাগ্রস্থ। আর তুমি (মুহাম্মাদ صلى الله عليه وسلم ) যদি তাদের সঠিক দিকনির্দেশনার প্রতি আহ্বান করো, তারপরেও তারা সঠিক দিকনির্দেশনা পাবে না।

৫৮. তোমার প্রভু সর্বাপেক্ষা ক্ষমাশীল, দয়ার মালিক। তারা যা করেছে সেজন্য তিনি যদি তাদের পাকড়াও করতেন তাহলে নিশ্চয়ই তাদের জন্য শাস্তি ত্বরান্বিত করতেন। কিন্তু তাদের জন্য নির্ধারিত সময় রয়েছে, যারপর তারা আর পালানোর কোন পথ খুঁজে পাবে না।
৫৯. আর সেইসব শহরকে (‘আদ, ছামুদ জাতি), আমি ধ্বংস করেছিলাম, যখন তারা অন্যায় করেছিল। আর আমি তাদের ধ্বংসের জন্য একটি নির্দিষ্ট সময় স্থির করেছিলাম।

৫৯. আর সেইসব শহরকে (‘আদ, ছামুদ জাতি), আমি ধ্বংস করেছিলাম, যখন তারা অন্যায় করেছিল। আর আমি তাদের ধ্বংসের জন্য একটি নির্দিষ্ট সময় স্থির করেছিলাম।


[১৮:৫২] আরবীতে “মাউবিক্ব” শব্দের অন্যান্য অর্থ হচ্ছেঃ শত্রুতা, ধ্বংস অথবা নরকের উপত্যকা।

<< পূর্বের পৃষ্ঠা ——— পৃষ্ঠা ৫/১২ ——— পরবর্তী পৃষ্ঠা >>

আলোচনা

কোন মন্তব্য নেই এখনও

মন্তব্য করুন...

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: