//
দুর্বৃত্ত মন্দকে কেন শয়তান বলা হয়

আরবী ভাষায়, শাইতন্‌ শব্দটি শাতনা শব্দ থেকে এসেছে, যার মান হচ্ছে, দূরের জিনিস। শাইতন্‌ এর স্বভাব প্রকৃতি মানুষের চেয়ে আলাদা, এবং সকল ধরণের ভাল কাজের পথ থেকে তার গুনাহের পথ অনেক অনেক দূরে। এটাও বলা হয়ে থাকে যে, শাইতন্‌ শব্দটি শাত (যার আক্ষরিক অর্থ দাহ্য) শব্দ থেকে এসেছে। কিছু বিশেষজ্ঞ এর মতে দুটি মতই সঠিক, তবে প্রথম মতটি বেশী বিশ্বাসযোগ্য। সিবাওয়িহ্‌ (প্রখ্যাত আরব ভাষাতত্ত্ববিদ) বলেছেন, “আরবরা যখন কেউ কোন খারাপ কাজ করে তখন বলে যে, ‘অমুক এবং অমুক হচ্ছে তাশাইতন্‌, যদি শাইতন্‌ শব্দটি শাত থেকে আসত, তাহলে তারা (তাশাইতন্‌ না বলে) বলত, তাশাইয়াত।” সুতরাং, শাইতন্‌ শব্দটি যে শব্দ থেকে এসেছে তার অর্থ হচ্ছে, অনেক দূরের। এ জন্য মানুষ এবং জিন্‌দের মধ্যে যারা অবাধ্য (অথবা ক্ষতিকর) তাদেরকে ‘শাইতন্‌’ বলা হয়। আল্লাহ্‌ বলেছেন,

﴿وَكَذَلِكَ جَعَلْنَا لِكُلِّ نِبِىٍّ عَدُوّاً شَيَـطِينَ الإِنْسِ وَالْجِنِّ يُوحِى بَعْضُهُمْ إِلَى بَعْضٍ زُخْرُفَ الْقَوْلِ غُرُوراً﴾

(আর আমি এভাবে মানুষ ও জিনের মধ্যে শয়তানকে প্রত্যেক নাবীর শত্রু করেছি, ধোঁকা দেয়ার জন্য তারা একে অন্যকে চমকপ্রদ কথা দিয়ে উসকানি দেয়) (৬:১১২)

ইমাম আহ্‌মাদ্‌ তার মুসনাদে লিখেছেন যে, আবু য্বার বলেছেন যে, নাবী صلى الله عليه وسلم বলেছেন যে,

«يَا أَبَا ذَرَ تَعَوَّذْ بِاللهِ مِنْ شَيَاطِينِ الْإِنْسِ وَالْجِنِّ»

হে আবু য্বার! মানুষ এবং জিনদের শয়তান থেকে আল্লাহ্‌র কাছে আশ্রয় চাও। আবু য্বার বললেন, “আমি তাঁকে জিজ্ঞেস করলাম, ‘মানুষরূপী শয়তান আছে?'” তিনি বললেন, হ্যাঁ।” এছাড়াও সহীহ্‌ মুসলিমে আছে যে, আবু য্বার বলেছেন যে, রসূলুল্লাহ্‌ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন যে,

«يَقْطَعُ الصَّلَاةَ الْمَرْأَةُ وَالْحِمَارُ وَالْكَلْبُ الْأَسْوَدُ»

নারী, বানর এবং কাল কুকুর নামাযে বিঘ্ন ঘটায় (যারা সুত্‌রাহ্‌ অর্থাৎ প্রতিবন্ধক এর পিছে নামায না পড়ে)

আবু য্বার বললেন, “আমি জিজ্ঞেস করলাম, ‘লাল অথবা হলুদ কুকুরের সাথে কালো কুকুরের পার্থক্য কোথায়?’ তিনি উত্তরে বললেন,

«الْكَلْبُ الْأَسْوَدُ شَيْطَانٌ»

(কালো কুকুর হচ্ছে শয়তান।)

ইবন্‌ জারির আত-ত্ববারি লিপিবদ্ধ করেছেন যে, উমার বিন আল-খাত্তাব একবার অনেক বিশাল এক উটের উপর চড়েছিলেন, যেটা একসময় উল্টাপাল্টা চলতে শুরু করল। উমার রদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু ক্রমাগত আঘাত করতে লাগলেন, কিন্তু উটটির উল্টাপাল্টা চলা বন্ধ হচ্ছিল না। ‘উমার সেটা থেকে নেমে যেয়ে বললেন, “আমাকে একটা শাইতন্‌ এর উপর চড়ানো হয়েছে। আমার মনে সন্দেহজনক কিছু অনুভূত হওয়ার পরই আমি নেমে গেছি।” এই হাদিসটির বর্ণনাকারীগণ নির্ভরযোগ্য।

<< পূর্বের পৃষ্ঠা  ▬▬▬▬▬ পরের পৃষ্ঠা >>

Advertisements

আলোচনা

কোন মন্তব্য নেই এখনও

মন্তব্য করুন...

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: