//
আল্লাহর প্রশংসা করা ও প্রত্যেক সলাতে আল-ফাতিহার প্রয়োজনীয়তা

আল-ফাতিহার শুরুতে মহান আল্লাহ স্বীয় উত্তম গুণাবলীর দ্বারা আল্লাহর প্রশংসা করা হয়েছে এবং এটা নির্দেশ করে যে, তাঁর বান্দারাও একইভাবে তাঁর প্রশংসা করবে। এ কারণেই যে ব্যক্তি এ সূরাটি জানা সত্ত্বেও সলাতে তা আবৃত্তি করে না তার সলাত হয় না। দুই সহীহ গ্রন্থে আছে, ‘উবাদাহ বিন আস-সামিত বলেছেন যে, নাবী صلى الله عليه  وسلم বলেছেন,

«لَا صَلَاةَ لِمَنْ لَمْ يَقْرَأْ بِفَاتِحَةِ الْكِتَابِ»

(তার সলাত হয় না যে এই গ্রন্থের আল-ফাতিহা আবৃত্তি করে না।)

সহীহ মুসলিমে আছে, আবূ হরইরহ বলেছেন যে নাবী صلى الله عليه  وسلم বলেছেন,

« قَالَ اللَّهُ عَزَّ وَجَلَّ: قَسَمْتُ الصّلَاةَ بَيْنِي وَبَيْنَ عَبْدِي نِصْفَيْنِ وَلِعَبْدِي مَا سَأَلَ فَإِذَا قَالَ:

﴿الْحَمْدُ للَّهِ رَبِّ الْعَـلَمِينَ ﴾، قَالَ اللهُ: حَمِدَنِي عَبْدِي وَإِذَا قَالَ:

﴿الرَّحْمَـنِ الرَّحِيمِ ﴾، قَالَ اللهُ: أَثْنى عَلَيَّ عَبْدِي، فَإذَا قَالَ:

﴿مَـلِكِ يَوْمِ الدِّينِ ﴾، قَالَ اللهُ: مَجَّدَنِي عَبْدِي وَقَالَ مَرَّةً: فَوَّضَ إِلَيَّ عَبْدِي فَإِذَا قَالَ:

﴿إِيَّاكَ نَعْبُدُ وَإِيَّاكَ نَسْتَعِينُ ﴾، قَالَ: هذَا بَيْنِي وَبَيْنَ عَبْدِي وَلِعَبْدِي مَا سَأَلَ، فَإِذَا قَالَ:

﴿اهْدِنَا الصِّرَاطَ الْمُسْتَقِيمَ – صِرَاطَ الَّذِينَ أَنْعَمْتَ عَلَيْهِمْ غَيْرِ الْمَغْضُوبِ عَلَيْهِمْ وَلاَ الضَّآلِّينَ ﴾، قَالَ اللهُ: هذَا لِعَبْدِي وَلِعَبْدِي مَا سَأَلَ»

মহান আল্লাহতা’আলা বলেছেন, “আমি নামাযকে (আল-ফাতিহাহ্‌) কে আমার এবং আমার বান্দার মাঝখানে দুই ভাগে ভাগ করেছি, এবং আমার বান্দা তাই পাবে যা সে চায়। যখন সে বলে,

﴿الْحَمْدُ للَّهِ رَبِّ الْعَـلَمِينَ ﴾

(সকল প্রশংসা ও ধন্যবাদ আল্লাহর জন্য, যিনি সকল বিশ্বজগতের প্রভু।)

আল্লাহ্‌ বলেন, ‘আমার বান্দা আমার প্রশংসা করেছে।’
যখন বান্দা বলে,

﴿الرَّحْمَـنِ الرَّحِيمِ ﴾

(সর্বাপেক্ষা দয়াময়, সর্বাপেক্ষা দয়ালু)

আল্লাহ্‌ বলেন, ‘আমার বান্দা আমার মাহাত্ম্য বর্ণনা করেছে।’
যখন বান্দা বলে,

﴿مَـلِكِ يَوْمِ الدِّينِ ﴾

(প্রতিফল দিবসের মালিক।) আল্লাহ্‌ বলেন, ‘আমার বান্দা আমার মাহাত্ম্য বর্ণনা করেছে,’ অথবা, ‘আমার বান্দা সবকিছু আমার উপর সমর্পণ করেছে।’ যখন সে বলে,

﴿إِيَّاكَ نَعْبُدُ وَإِيَّاكَ نَسْتَعِينُ ﴾

(আমরা [শুধু] আপনারই উপাসনা করি, এবং [শুধু] আপনার কাছেই সাহায্য চাই)

আল্লাহ্‌ বলেন, ‘এটা একান্তই আমার ও আমার বান্দার মধ্যকার ব্যাপার, এবং আমার বান্দা যা চাবে সে তাই পাবে।’
যখন সে বলে,

﴿اهْدِنَا الصِّرَاطَ الْمُسْتَقِيمَ – صِرَاطَ الَّذِينَ أَنْعَمْتَ عَلَيْهِمْ غَيْرِ الْمَغْضُوبِ عَلَيْهِمْ وَلاَ الضَّآلِّينَ ﴾

(আমাদের সরল পথে পরিচালিত করুন। তাদের পথ যাদেরকে আপনি অনুগ্রহ দান করেছেন। তাদের [পথ] নয়, যারা আপনার রোষে পতিত হয়েছে, আর না তাদের যারা পথভ্রষ্ট), আল্লাহ বলেন, ‘এটা আমার বান্দার জন্য, আমার বান্দা যা চাবে সে তাই পাবে।’)।”

<< পূর্বের পৃষ্ঠা ▬▬▬▬▬ পরের পৃষ্ঠা >>

আলোচনা

কোন মন্তব্য নেই এখনও

মন্তব্য করুন...

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s

%d bloggers like this: